মুকুটমণিপুর | Mukutmanipur Weekend tour from Kolkata tour guide

বাঁকুড়া জেলার অন্যতম একটি পর্যটন কেন্দ্র হল মুকুটমণিপুর(Mukutmanipur), কংসাবতী ও কুমারী নদীর মিলন স্থলে গড়ে উঠছে একটি বাঁধ এই বাঁধকে ঘিরেই গড়ে উঠেছে পর্যটন , যেখানে ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম মাটির বাঁধটি মুকুট বা “মুকুট” এর মতো রহস্যময় টিলা দ্বারা বেষ্টিত । এই জন্য এই স্থানের নাম মুকুটমণিপুর ।

mukutmanipur tour guide from kolkata
source : Bankura gov

অপরূপ সুন্দর প্রাকৃতিক সুংদর্জ্য এই স্থানটির, একটি বিশাল জলাশয়কে ঘিরে পাহাড় এবং বন রয়েছে । দুটি নদীর সঙ্গমস্থলে অবস্থিত, এটি সবুজ মোড়ানো “রাঙ্গামাটি” তে নেকলেস আকৃতির বাঁধের জন্য বিখ্যাত ,সুনির্দিষ্টভাবে বলতে গেলে, ‘বাঁকুড়ার রানি’ ।

mukutmanipur dam

যারা কোলকাতা থেকে কাছাকাছি সাপ্তাহিক ছুটি কাটিয়ে রিল্যাক্স ফিল করতে চান তারা অবশ্যই এখানে একবার আসতে পারেন এবং মন ভরে এই প্রাকৃতিক শোভার মজা নিতে পারেন । নদীর জলে নৌকাবিহার করে আশেপাশে ঘুরে দেখে নিতে পারেন বেশ কিছু স্থান , কোলকাতা থেকে এই মুকুটমণিপুর এর দূরত্ব প্রায় 250 কিমি ।

যারা জঙ্গল বা ফরেস্ট পছন্দ করেন তারা মুকুটমণিপুর থেকে কাছে ঝিলমিল ও সুতান এর বহুদূর প্রসারিত জঙ্গলে এও ঘুরে দেখার সুযোগ থাকছে ।

সাপ্তাহিক ছুটি কাটানোর জন্য দারুন একটি স্থান হয়ে উঠতে পারে এই মুকুটমণিপুর ।

চলুন দেখে নেই কীভাবে এখানে পৌছবেন , কোথায় থাকবেন , কী কী দেখবেন ইত্যাদি ।

Mukutmanipur Location & Disatnace from Kolkata

এই মুকুটমণিপুর বাঁকুড়া জেলার একটি ছোট গ্রাম , বাঁকুড়া থেকে এই স্থানের দূরত্ব প্রায় 55 কিমি , ও কোলকাতা থেকে দূরত্ব প্রায় 230 কিমি ।

How to Reach Mukutmanipur from Kolkata/Howrah

train time for bankura

মুকুটমনিপুর থেকে সব থেকে কাছের রেল স্টেশন হল বাঁকুড়া স্টেশন , বাঁকুড়া থেকে এই স্থানের দূরত্ব প্রায় 55 কিমি। ওপর কাছের স্থান হল বিষ্ণুপুর আপনারা বিষ্ণুপুর এ নেমে সেখান থেকেও পৌছে যেতে পারেন । তাই আপনাদের এখানে পৌছতে গেলে কোলকাতা থেকে ট্রেন এ প্রথমে বাঁকুড়া পৌছতে হবে এবং সেখান থেকে বাস বা গাড়ি ভাড়া করে পৌছে যেতে হবে মুকুটমণিপুর ।

কোলকাতার সাঁতরাগাছি থেকে সকাল 6.25 মিনিটে রুপসী বাংলা ট্রেন ধরে বা শালিমার স্টেশন থেকে আরণ্যক এক্সপ্রেস এই ট্রেন ধরে বাঁকুড়া পৌছে যেতে পারেন । ট্রেন ভাড়া পড়বে প্রায় 150 টাকা বা তার বেশি । এরপর বাঁকুড়া থেকে পার্সোনাল গাড়ি ভাড়া করে মুকুটমণিপুর পৌছে যান , গাড়ি ভাড়া পড়বে প্রায় 2200 টাকা । এছাড়াও বাস এ করে মুকুটমণিপুর পৌছে যেতে পারেন ।

এছাড়াও সড়কপথে নিজেদের গাড়ি করে বা বাস এ বাঁকুড়া পৌছে এখান থেকে পৌছে যান ।

Best time to visit Mukutmanipur

বছরের প্রায় যে কোনও রেইন এখানে আসা যেতে পারে , তবে শীতকাল (নভেম্বর – মার্চ ) এই সময় এখানে আসার ভাল সময় । এখানে শীতকালে নানা পরিযায়ী পাখিদের আনাগোনা দেখতে পাবেন , বসন্তকালে পলাশ ফুলের সৌংদর্য ও অপরূপ লাগে ।

শীতকালে দূর দুরন্ত থেকে বহু লোক এখানে পিকনিক ও করতে আসে , ফলে বহু লোকের সমাবেশ হয়ে এখানে ।

Mukutmanipur Hotel Number | Where to stay in Mukutmnaipur

মুকুটমণিপুর এ ড্যাম এ ধারে থাকার জন্য লজ হোটেল রিসর্ট এগুলো পেয়ে যাবেন । তবে এখানে হোটেলের সংখা খুব বেশি না হওয়ায় এখানে এলে আগের থেকে হোটেল বা রিসর্ট বুক করে আসা উচিত ।

এছাড়াও আপনি যদি একা আসেন তবে ড্যাম এর ধরে ইউথ হোস্টেল এও থাকতে পারেন । নিচে কিছু হোটেল লজ এর নাম্বার দেওয়া হল …

Asha Lodge07602768014
Monalisa Lodge09932366105
Aryanyak Resort09163395263
Hotel Malnacha
এই সমস্ত হোটেল/লজ গুলির ভাড়া প্রায় 800-1500 টাকার মধ্যে , অবশ্যই দাম দর করে নেবেন ।

এই সমস্ত হোটেল বা লজ ছাড়াও আর কিছু থাকার স্থান আছে যেমন Peerless Resort Mukutmanipur ,Sonajhuri Prakriti Bhraman Kendra এই স্থানগুলিতে থাকার খরচা একটু বেশি আপনারা চাইলে এখানেও থাকতে পারেন ।

আরও দেখুন-

What to See In Mukutmanipur | Things to do in Mukutmanipur

mukutmanipur boating

মুকুটমণিপুর এ আপনার যা যা দেখবেন টা হল …

  • মুকুটমণিপুর বাঁধ: ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম মাটির বাঁধ কংসাবতী,বাঁধটি ১১ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং তৎকালীন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ বিধানচন্দ্র রায়ের প্রশাসনে নির্মিত হয়েছিল। অপূর্ব সুন্দর এই স্থানটি মাঝে জলাশয় ও তার চারপাশে ঘিরে আছে পাহাড় । আপনার এই বাঁধ টি ঘোড়ার জন্য টোটো বা ভূটভূটি ইত্যাদি এই বাঁধ এর উপরে পেয়ে যাবেন , প্রায় 50 টাকা ভাড়া নিয়ে আপনাকে বাঁধ এর উপরে রাস্তা দিয়ে ঘুরিয়ে দেখিয়ে দেবে ।
  • মুসাফিরানা ভিউপয়েন্ট : এই বাঁধ এর কাছেই আছে এই ভিউ পয়েন্টটি , একদিকে বিভিন্ন গাছপালা দিয়ে সাজানো ও ওপর দিকে মুকুটমণিপুর বাঁধ এর সুন্দর দৃশ্য আপনার চোখের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে ।
  • পরেশনাথ শিব মন্দির : মহাদেবের একটি উন্মুক্ত মন্দিরের পাশাপাশি স্থানীয় মানুষের জন্য একটি পবিত্র স্থান। বাঁধ নির্মাণের সময়, মূর্তিটি মাটি খনন করে পাওয়া গিয়েছিল এবং এটি জৈন সংস্কৃতির নিদর্শন হিসাবে বিবেচিত হয়। বাঁধ এর ওপর প্রান্তে আছে এই শিব মন্দিরটি , মুকুটমণিপুর এর সব থেকে উচু স্থান এটি এখান থেকে পুরো মুকুটমণিপুর স্থানটির সুন্দর দৃশ্য দেখতে পাওয়া যায় ।
  • বনপুকুরিয়া ডিয়ার পার্ক : এই স্থানে যাওয়ার জন্য আপনাদের নৌকো করে পার হতে হবে , নৌকো খরচ পর্বে প্রায় 100 টাকা , নদীর ওপর পৌছে 30 টাকা দিয়ে ভূটভূটি ভাড়া করে চলে আসতে পারেন এই ডিয়ার পার্ক এ । এখানে দেখতে পাবেন অনেক হরিণ , তাদের চাইলে ঘাস পাতা ও খাওয়া তে পারবেন ।
  • অম্বিকা মন্দির : অম্বিকানগর মন্দির, অম্বিকানগর গ্রামে অবস্থিত সেই জায়গা যেখানে গত ৭০০ বছর ধরে দেবী দুর্গা মা অম্বিকা হিসাবে পূজিত হয়ে আসছেন। স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, মা অম্বিকা এখনও বেঁচে আছেন। আসুন অম্বিকানগর মন্দিরে প্রাচীন আচারের কাঁচা সুবাস দিয়ে আপনার ‘দুর্গা পূজা’কে এই বছর অনন্য করে তুলি। ব্যস্ত ভিড় আর কোলাহল থেকে দূরে, স্থানীয় মানুষের সমৃদ্ধ আবেগ এবং তাদের স্বাগত জানানোর স্বভাব অবশ্যই আপনাকে সুখে নিমজ্জিত করবে।
  • নৌকোবিহার : উপরের এই সমস্ত স্থানগুলি আপনি ড্যাম এর জলে নৌকোবিহার করে পৌছে যেতে পারেন , নৌকো তে আপনাদের খরচ পড়বে প্রায় 150 টাকা প্রতিজন এই খরচ এ আপনাদের উপরের সমস্ত স্থানগুলি ঘুরিয়ে দেখিয়ে দেবে ।

Bankura to mukutmanipur distance ?

বাঁকুড়া থেক মুকুটমণিপুর এর দূরত্ব প্রায় 55 কিমি ।

Bishnupur to mukutmanipur distance ?

বিষ্ণুপুর থেকে মুকুটমণিপুর এর দূরত্ব প্রায় 72 কিমি ।

Which is the nearest Railway station to Mukutmanipur?

মুকটুমণিপুর এর সব থেকে কাছের রেল স্টেশন হল বাঁকুড়া ।

আসা করি আপনাদের মুকুটমণিপুর সম্পর্কে এই আর্টিকেলটি ভাল লেগে থাকবে ও আপনাদের ভ্রমণে সাহায্য করবে ।

Leave a Comment